ঢাকাSunday , 6 February 2022
  1. blog
  2. Mail Order Brides
  3. Online dating
  4. অপরাধ
  5. আইন আদালত
  6. আন্তর্জাতিক খবর
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. কুয়াকাটা এক্সক্লুসিভ
  10. খেলাধুলা
  11. জনদুর্ভোগ
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. তথ্যপ্রযুক্তি
  15. দূর্ঘটনা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কুয়াকাটার পৌরগোজায় পল্লী চিকিৎসকের বাড়ি ডাকাতি, টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটের অভিযোগ

rabbi
February 6, 2022 3:37 pm
Link Copied!

কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :
কুয়াকাটায় পল্লীচিকিৎসকের বাড়ি ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে বলে অভিযোগ বাড়ির মালিক সুকদেব সৈদ্যালের। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার দিবাগত রাতে কুয়াকাটার পৌরগোজা গ্রামে। পরিবার সূত্রে জানাগেছে, ডাকাতরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে ঘরের সবাইকে মারধর করে বেধে রেখে নগদ তিনলক্ষাধীক টাকা ও প্রায় পাঁচলক্ষ টাকা মূল্যের স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে গেছে।
এদিকে পুলিশ বলছেন ডাকাতির নাটক সাজানো হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ এখনও কোন মামলা নেয়নি বলে জানান ঐ পল্লী চিকিৎসক।
সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, গ্রাম্য ডাক্তার সুকদেব সৈদ্যালের বসত বাড়িতে গ্রামের শতাধিক লোক জড়ো হয়েছেন। ডাকাতির ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন সুকদেব সৈদ্যাল। তার বসত ঘরের পূর্ব ও উত্তর পাশে দুইটি সিধ কাটা রয়েছে। ঘরের প্রধান দরজার লক ভাঙ্গা আছে। ঘরের মধ্যে অবস্থিত মিনি মন্দির ও আলমিরাসহ আসবাবপত্র এলোমেলো রয়েছে। মন্দিরে থাকা পিতলের রাঁধা-কৃষ্ণের যুগল মূর্তি, স্বর্ণের মুর্তি ভেবে নিয়ে গেছে ডাকাতরা।
সুকদেব সৈদ্যাল (৫০) বলেন, রাতের খাবার খেয়ে আমি ঘরের ভিতরের একটি কক্ষে ঘুমিয়ে পরি। আমার স্ত্রী ও ছোট ছেলে সামনের বারান্দায় ঘুমায়। আর বড় ছেলে আমার ভাইয়ের বাসায় ঘুমিয়ে ছিলো। রাত আড়াইটার দিকে হঠাৎ একটি শব্দ শুনে আমার ঘুম ভেঙ্গে যায়। এর মধ্যেই আমার স্ত্রী বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার শুরু করে। তখন ডাকাতরা তার চিৎকার থামানোর চেষ্টা করে। আমি রুমের ভিতর থেকে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার দিলে ওরা আমার রুমের দরজার সামনে এসে দরজা খুলতে বলে। দস্যুরা রুমের দরজায় লাথি মারতে থাকে একপর্যায়ে দরজা খুলে যায়। এরপর আমাকে লোহার রড দিয়ে মেরে টাকা ও স্বর্ণালংকার চায়। অন্যথায় আমার ছোট ছেলেটাকে জবাই করার ভয় দেখায়। যেকারণে আমি তাদের চাবি দিতে বাধ্য হই। চাবি নিয়ে ওরা আমার হাত-পা, চোখ-মুখ বেধে ফেলে। এরপর তারা নগদ তিনলক্ষীক টাকা, প্রায় পাঁচলক্ষ টাকা মূল্যের স্বর্ণালংকার এবং সোনার মূর্তি ভেঙ্গে রাঁধা-কৃষ্ণের যুগল মূর্তি নিয়ে চলে যায়। যাবার সময় ওরা পাশের ঘরে ডাকাতি করবে বলে চিৎকার দিতে নিষেধ করে।
তিনি আরও বলেন, ডাকাতদের সাথে একটি কাটা রাইফেল, অসংখ্য দেশীয় অস্ত্র ছিলো। ওরা সংখ্যায় ১৪-১৫ জন হবে। ঘরের মধ্যে ১০-১২জন, বাকিরা বাহিরে ছিলো। আমি কাউকে চিনতে পারিনি। দু’জন স্থানীয় ভাষায় কথা বললেও মুখে মাক্স ছিলো। বাকিরা চট্টগ্রাম এলাকার ভাষার মতো কথা বলছে। ওদের কারো পায়ে জুতা ছিলো না। ওরা নিজেদের মধ্যে গালাগালি ও হাসাহাসি করছে।
তিনি বলেন, ডাকাতরা প্রথমে ঘরের পূর্ব পাশ দিয়ে সিধ কেটে ডোকার চেষ্টা করছে। কিন্তু সেখানে মন্দির থাকায় ডুকতে পারেনি। এরপর উত্তর পাশ দিয়ে সিধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে। পিছনের বারান্দায় দরজা থাকায় ভিতরে ডুকতে পারেনি। সর্বশেষ সামনের দরজায় ধাক্কা দিয়ে লক ভেঙ্গে ঘরে ডুকে বাতি জ্বালিয়ে ডাকাতি শুরু করে।
পুলিশ তার ঘর থেকে তিন লক্ষ দুই হাজার টাকা উদ্ধার করেছে।
এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমার ঘরে আলাদা আলাদা জায়গায় টাকা থাকে। ডাকাতরা তিনলক্ষ টাকা পেয়ে নিয়ে গেছে। বাকি টাকা খুঁজে পায়নি। যা পুলিশ খুঁছে পেয়েছে।
সুকদেব সৈদ্যালের স্ত্রী শিবানী রানী (৩৫) বলেন, আমি দরজা ভাঙ্গার শব্দ পেয়ে চোখ খুলে দেখি ৭-৮ জন ঘরের মধ্যে প্রবেশ করেছে। আমি বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দিলে ওরা আমার ও ছোট ছেলে শিথিলের গলায় দা এবং স্ক্র ড্রাইভার ধরে বেধেঁ ফেলে। এসময় চিৎকার করতে নিষেধ করেন। ভয় আমরা চুপচাপ বসে থাকি।

সুকদেব সৈদ্যালের বড় ছেলে সৌরভ (১৭) বলেন, আমি পাশে চাচার ঘরে ঘুমিয়ে ছিলাম। বাবার ডাক চিৎকার শুনে বাহিরে বের হয়ে দেখি অপরিচিত ৪-৫ জন লোক অস্ত্র হাতে দাড়িয়ে আছে। আমি পিছনে ফেরৎ আসার জন্য দৌড় দিলে আচার খেয়ে মাটিতে পরে যাই। ওরা এসে আমাকে ধরে নিয়ে চোখ বেধে ফেলে।
প্রতিবেশী সুজন হাওলাদার বলেন, আমার ছেলে হৃদয় ও সৌরভ এক জায়গায় ঘুমিয়ে ছিলো। ডাকাতরা যাওয়ার পর হৃদয় আমাকে ডাকে। আমি ও আমার স্ত্রী এসে দেখি তাদের হাত-পা ও চোখ-মুখ বাধা অবস্থায় কন্নাকাটি করছে।
হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক পবিত্র হাওলাদার বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে ডাকাতির আলামত দেখাযায়, তবে এরকম ঘটনা ঘটলে হিন্দুদের শংকার মধ্যে বসবাস করতে হবে। দ্রæত এদেরকে আইনের আওতায় এনে বিচারের কার্য সম্পাদন করতে প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. দুলাল সিকদার বলেন, ‘আমি সকালে খবর পেয়ে গিয়ে দেখি অনেক লোকজন উপস্থিত। সুকদেব ডাক্তারের মুখে ঘটনার বর্ণনা শুনেছি। ডাকাতির আলামত দেখেছি। সত্য মিথ্যা বলতে পারবো না।
মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বলেন, রাতে খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক টহলে থাকা পুলিশ পাঠাই। পরে আমি সঙ্গিয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিক তদন্ত করি। তাদের একজনের বক্তব্যের সাথে অন্যজনের বক্তব্যের মিল না পেয়ে তল্লাশি চালিয়ে দুইটি মোবাইল এবং আলাদা আলাদা জায়গা থেকে তিনলক্ষ দুই হাজার টাকা পেয়েছি। আমার কাছে সাজানো নাটক মনে হয়েছে। অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, উনি একজন পল্লী চিকিৎসক। তার কাছে অনেকগুলো ঔষধ কোম্পানী টাকা পাবে এবং আশেপাশের লোকজন তার ঘরে টাকা গচ্ছিত রাখে। তার ঘরে পাওয়া টাকা তাকে ফেরৎ দিয়েছি। মোবাইল দু’টি আমি নিয়ে এসেছি, তদন্ত করে বিস্তারিত জানাবো।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
x